Akhi alomgir pussy

-আপনি ভদ্র লোক, আপনাকে বলতে আপত্তি নেই। ঐ বেটা দারোয়ান লোকটা ভাল না। আর কিছু জিজ্ঞাসা করতে ইচ্ছা হল না, কখন বৃষ্টি থামবে সেই আশাতে সিগারেটে টানদিয়ে চলেছি, কিনতু বৃষ্টি থামার কোন লক্ষই দেখা যাচ্ছে না। -বাচ্চাটি কি তোমার মেয়ে? আবার বিদ্যুত চমকালো, ছোট বাচ্চাটি গুটিসুটি মেরে সরে আসল গাছের দিকে। -আমার ভাইজি হয়। -ও। বৃষ্টি কমার কোন লক্ষনই দেখতে পাচ্ছি না, ওদিক খালার জন্য চিন্তা হচ্ছে। মোবাইলে আবার সময় দেখলাম, ১১ টা পার হয়ে গেছে। হঠাৎ খুব কাছে বাজ পড়ল। বাচ্চাটি ভয়ে চুপসে গেল, সরে আসল আমার দিকে। তার ফুফুও ভাইজির সাথে সাথে সরে আসল। এই পাশে ডাল থাকায় বৃষ্টির পানি ঝাট ছাড়া লাগছে না গায়ে। বৃষ্টি থামার কোন লক্ষ্মন দেখা যাচ্ছে না। বিরক্ত হয়ে পড়ছি। হঠাৎ আবার বাজ পড়ল, এবার যেন খুব কাছে। বাচ্চাটা প্রায় আমার কোলে এসে পড়ল। তার চাচীও সরে আসল। হঠাৎ কেনই যেন নরম কিছু ঠেকল। তাকালাম পাশে। মহিলা আর আমার মধ্যে চার আংগুলের ফারাক। আমার কেন তার দুধে লেগেছে। অত্যন্ত নরম, স্বাভাবিকের চেয়ে। এবার ইচ্চা করে কেন এগিয়ে দিলাম। মহিলার হাতের উপর দিয়ে কেন যেয়ে তার দুধে মৃদু ধাক্কা লাগল। নড়েচড়ে উঠল মহিলা। আবার দিলাম, এবার একটু বেশি চাপ। -চল খুকি, দুনিয়ার সব লোক একরকম। এখনও পর্যন্ত আমার মাথায় অন্য কোন চিন্তা ছিল না, কিন্তু মহিলার বিদ্রুপ যেন আমাকে জাগিয়ে তুলল। দাড়িয়ে গেছে মহিলা। -ডাক্তার দেখিয়েছ কোন সময়, এখনত চোখ ভাল হয়ে যায়। বুজলাম তার মনে ধাক্কা লেগেছে। আবার বসে পড়ল। বাচ্চাটি উঠতে উঠতে যাচ্ছিল, আবার বসে পড়ল। -সত্যি বলছেন, ভাল হয়ে যায়। -হ্যা, আমাদের বাড়ীর পাশেত একজনের হয়েছে। বিশ্বাস না হয় ডাক্তারের কাছে যাও। -কিনতু ডাক্তার কি আমার মত গরীব লোককে দেখবে। -অবশ্যই দেখবে। পাশের জেলায় মিশন হাসপাতাল আছে, ওখানে চলে যাও। ওদের ওখানে ধনি-গরীব নেই। -ভাই, আপনি আমার আপন ভাই, আমার একটু যাওয়ার ব্যবস্থা করে দেবেন। আমি সারাজীবন আপনার বান্দি হয়ে থাকব। -আচ্চা ঠিক আছে। মহিলা ইতিমধ্যে আমার অনেক কাছে সরে এসেছে। তার গা এখন আমার গায়ে লেগে রয়েছে। আবার দুধের ছোয়া লাগল। -তোমার বিয়ে হয়েছে? চোখে রেটিনা নামে একধরনের জিনিস থাকে। যাদের রেটিনা নষ্ট তারা দেখতে পায় না। মানুষ মরে গেলে তার রেটিনা অন্যের চোখে লাগিয়ে দিলে চোখ ভাল হয়ে যায় মহিলা যেন আরো সরে আসল আমার দিকে। আস্তে আস্তে ডানহাতটা বাড়ালাম, অন্ধকারে রাখলাম মহিলার উদ্ধত দুধের পরে। সরে গেল এক নিমেষে। -কি করছেন ভাই। আমি অসহায় বলে সুযোগ নিচছেন। এই খুকি চল, আমার চোখ ভাল হওয়ার দরকার নেই। -তোমার ইচ্ছে। কাল আমি যাব পাশের জেলায়, ইচছা হলে যেতে পার আমার সাথে। চুপচাপ বসল, কিনতু বেশ দুরুত্ব রেখে। অপেক্ষা করলাম, আরো দুই এক মিনিট। -তোমার এত বড় উপকার করবো, তোমারতো উচিৎ আমাকে কিছু দেওয়া। নাকি বল? তবে দোয়া করি যেন ভাল থাকেন। -শুধু দোয়ায় কাজ হয় না, আরো অনেক কিছু দিতে হয়। -আমারতো টাকা পয়সাও নেই যে আপনাকে দেব, তাহলে কি দেব?

বিদ্যুতের ঝলকে আদুল গায়ের লিকলিকে মেয়েটাকে দেখে জিজ্ঞাসা করলাম। -মেয়ে পাব কনে বলেন? -আগে তোমার চোখ ভাল হোক, তারপরে দিও। আবার হাত বাড়ালাম, পুর্ণ হাত রাখলাম, দুধের পরে, নড়বসল কিনতু উঠল না, মোলায়েম দুধ। -কালকেই চল আমার সাথে, আমার পরিচিত ডাক্তার আছে। বাচ্চাটা ইতিমধ্যে ঢলতে শুরু করেছে। আস্তে আস্তে দুধে হাত বোলাতে লাগলাম। কোমল দুধ। বাম হাত বাড়িয়ে শাড়িটা সরিয়ে দিলাম, ব্লাউজের প্রান্ত দিয়ে ডান হাতটা পুরে দিলাম, বেশ বড়, পুরোটা হাতে ধরছে না, কিনতু আশচর্য কোমল। কোথাও কোন ভাজ নেই, পরিপূর্ণ। -তোমার দুধ খুব সুন্দর। -দেখার কেই নেই তো, তাই হয়তো। বুজলাম অন্ধ হলেও তার মধ্যে একটা ফিলোসফি কাজ করছে। -তার মানে?

” আমি চেয়ারে বসতে বসতে সপ্না কে বললাম। ও তখন কি একটা আনতে কিচেনে গিয়েছিল। এসে আমার পাশে দাঁড়িয়ে একটা দুষ্ট হাসি হেসে বলল, “কেন আমার হবু বর?

”–না,না, আমি এত গুলা খেতে পারবো না। আমি শুধু কাস্টার্ডটা আর নুডুলসটা খাবো।–ঠিক আছে,আগে শুরু কর না। বাকিটুকু পরে দেখা যাবে।খেতে খেতে জানলাম আংকেল বাসাতে আসবেন পনের দিন পর। এই কয়দিন ও বাসাতে একাই। আরও জানলাম আমাকে ওর সাথে প্রায় দুইদিন আর তিন রাত থাকতে হইতেছে।সন্ধ্যায় আমি সপ্নার রুমে খাটে শুয়ে শুয়ে টিভি দেখছিলাম। ও কিচেনে রাতের খাবার বানাচ্ছিল। ওর রুমটা অনেক সুন্দর করে সাজানো গুছানো। দেখেই বুঝা যায় একটা মেয়ের রুম। ডাবল বেডের বক্স খাট। খাটটা আবার অনেক নরম ছিল। শুইলে পুরা শরীর ঢুকে যায়। বিছানার সামনে একটা সিঙ্গেল কাউচ রাখা। সেটার পাশে আবার একটা হোম থিয়েটার। দেয়ালে রেক্টিংগুলার প্লাজমা টিভি। ২৭ ইঞ্চি হবে মনে হয়। তখনও এই গুলা আমাগো দেশে খুব প্রচলিত ছিল না। আংকেল মাঝে মাঝে বিদেশ গেলে নিয়ে আসতেন । ওর রুমের ডান দিকে মানে পূর্ব দিকে একটা বড় ব্যলকনি ছিল আর থাই গ্লাসের বিশাল জানালা। ওদের ফ্ল্যাটটার সবচেয়ে সুন্দর রুম মনে হয় সপ্নারটাই। রুমের ডিস্টেম্বারের সাথে ম্যাচ করে হালকা গোলাপি রঙের পর্দা লাগান হয়েছিল জানালাতে। পর্দা গুলা আবার খুব মোটা। বিছানার চাদরও হালকা গোলাপি কালারের ছিল। একটা এ.সি ও লাগানো হয়েছিল। যেটাকে ওর রুমে কিছুটা বেমানান লাগছিল । ব্যলকনি,জানালার পর এ.সি’র কোন দরকারই ছিল না। হয়ত ওটাও একটা বিলাসিতা ছিল।একটু পর ও এসে বলল, “বুজলা, বাসাতে বুয়া নাই। এজন্য সবকিছু নিজের হাতেই করতে হইতেছে। তোমারে সময় দিতে পারতেছি না।” আমি কিন্তু bore হইতেছিলাম না। তারপর বলল, “চা খাবা নাকি কফি?

”–Obviously সেক্সের এঙ্গেল থেকে।মাল ছাড়ার কিছুক্ষণ পর,এই দশ পনের মিনিট পর আমার বাড়াটা সবসময় প্রমান সাইজ থেকে একটু বেশিই ছোট হয়ে যায়। লম্বায় কানি আঙ্গুলটার মত হয়ে যায়। কথা বলতে বলতে ও আমার বাড়াতে হাত দিল। দিয়েই চমকে শোয়া থেকে উঠে বসে পড়লো। চোখ বড় বড় করে বলল, “তোমার বাড়াটা এত ছোট হয়েছে কিভাবে?

–হ্যাঁ,দেখি মানে দেখার চেষ্টা করেছিলাম কয়েকবার।–কেন? –দেখে ভাল লাগে না। সবগুলাই একরকম। কোন ভিন্নতা নাই। একঘেয়ে।–“তোমার তাহলে ভিন্নতাও দরকার,না?

”আমি হঠাৎ করে টের পেলাম আমি কথা বলতে চাচ্ছি কিন্তু বলতে পারছি না। আমার গলা যেন কে চেপে ধরেছে। সেটাই মনে হয় বাকরুদ্ধতা। বাকরুদ্ধ আমি অস্ফুট স্বরে বললাম, “অপূর্ব…….।”ও আমার সামনে কিছুক্ষণ পোজ দিয়ে দাঁড়িয়ে ছিল। আমার সময়,ঘড়ি,টাইম কিছুই মাথায় ঢুকছিল না। আমি শুধুই তাকিয়ে ছিলাম অবাক বিস্ময় নিয়ে। আমার চেনা সপ্নাকে অচেনা ভাবে দেখছিলাম। ওর এত্ত রূপ আমার চোখে এর আগে কখনও ধরা পড়ে নাই।পরে জেনেছিলাম ও নাকি সেই রাতে পাক্কা চল্লিশ মিনিট আমাকে পোজ দিয়ে দাঁড়িয়ে ছিল। আমি জিজ্ঞাসা করেছিলাম আমাকে ডাক দেয় নাই কেন। ও বলেছিল আমার চেহারা দেখে নাকি ওর মায়া হচ্ছিল। আমাকে দেখে বলে মনে হচ্ছিল আমি একটা Innocent Child । ওরে চল্লিশ মিনিট দাঁড় করায় রাখার জন্য আমি পরে অবশ্য স্যরিও বলেছিলাম।তারপর ও আমার চোখের দিকে তাকিয়ে আদুরে কণ্ঠে বলল, “স্পর্শ করবে না আমায়?

” আমি বলতে চাচ্ছিলাম করবো না। কিন্তু ও যেন আমায় সম্মোহিত করে ফেলেছিল। আমার মুখ দিয়ে বের হয়ে গেল, “করবো।” ও একটা হালকা মিউজিক ছেড়ে দিয়ে আমার কাছে এসে হাত ধরে দাঁড় করিয়ে দিল। আমি উঠে দাঁড়ালাম। ওর শরীরের কাছাকাছি হতেই ওর গা থেকে বডি স্প্রের একটা হালকা সুন্দর স্মেল নাকে আসলো। তারপর কিছুক্ষণ আমরা Ballroom Dance করলাম। সাধারণত এটা করে স্যুট,টাই আর লং স্কাট পইরা। আমরা সে রাতে করলাম সম্পূর্ণ উলঙ্গ হয়ে। অদ্ভুত মজা পেলাম। ডান্স করার সময় ওর শরীরে হাত দিয়ে অনুভব করলাম ওর স্কিনটা অনেক মসৃণ। পুরো শরীরেই একটা পরিচর্যার ছাপ ছিল। প্রায় আধা ঘণ্টা পরে আমি ওকে কোলে নিয়ে বিছানায় শুইয়ে দিলাম। তারপর আমি ওর পাশে শুলাম। তখনও মিউজিকটা বাজছিল। আমি শুয়ে শুয়ে সেটা শুনছিলাম। সপ্না একটু পর গড়িয়ে এসে আমার উপর উঠল। আমি ওকে দুহাতে জড়িয়ে ধরে ওর কপালে একটা চুমু দিলাম। আমার এখনও মনে পড়ে ওকে আমি খুব আলতো করে ধরেছিলাম। আমার কেন জানি মনে হচ্ছিল একটু চাপ খেলেই আমার এই মানুষরূপী পুতুলটা ভেঙে চুরচুর হয়ে যাবে। আমি ওকে চুমু দেবার পর সপ্নাও আমাকে চুমু দিল। এরপর দীর্ঘক্ষন আমরা লিপকিস করলাম একজন আরেকজনকে। ওর দুধ গুলো আমার খুউব ধরতে ইচ্ছা করছিল। কিন্তু মন সায় দিচ্ছিলো না। মনে হচ্ছিল ও মাইন্ড করতে পারে। তাই লিপকিসেই নিজেকে কষ্ট করে বেঁধে রাখলাম। যত না করছিলাম তার থেকে বেশি পাচ্ছিলাম। সপ্না নিজেই একটু পর আমার ডান হাতটা নিয়ে ওর দুধে ধরিয়ে দিল। আমি ওর দুধে হাত দিয়েই আঁতকে উঠলাম। এত্ত নরম শরীরের কোন অংশ হতে পারে আমার ধারনা ছিল না। আমি প্রথমে ওর দুধ গুলোতে হাত বুলাচ্ছিলাম। তারপর আস্তে আস্তে টিপতে লাগলাম। কিছুক্ষণ পর সপ্না আমার উপর থেকে নেমে গেল। আমি তখন ওর উপর উঠবো কিনা ভাবতে লাগলাম। স্বাভাবিক ভাবেই এর আগে কোন মেয়ের উপর উঠার Experience ছিল না। তাই ও ব্যাথা পাবে মনে করছিলাম। কিন্তু পরে দেখলাম ও খুব সুন্দর করে আমাকে absorb করে নিল। আমি ওর ঠোঁটে একটা কিস করলাম। সপ্নাও সাড়া দিল। সপ্নার লিপকিস মনে হয় অনেক প্রিয়। এটা অবশ্য ও আমার কাছে মুখে স্বীকার করে নাই। তবুও এখনও দেখি ও এই লিপকিস কে অনেক বেশি Priority দেয়। Even অফিসে যাবার আগেও একবার আর অফিস থেকে এসেও একবার কিস দিতেই হয়। আসলে দিতে হয়,না বলে,বলা উচিত ও আমার কাছ থেকে আদায় করে নেয়। আমার অবশ্য এটাতে সমস্যা নাই। ও যেটাতে মজা পাচ্ছে সেটা করতে আমার কি প্রবলেম?

–ঠিক আছে।এই ছেলেটা সব কিছুতেই অনেক চেষ্টা করত। অনেক পরিশ্রম করত। কিন্তু চিন্তা করত জটিল করে। যেটার জন্য ও অনেক সহজ জিনিসও বুঝত না। আমি জানতাম ও আঁকতে পারবে না। এই জন্যই ওরে এটা আঁকতে দিয়েছিলাম। আমার যেই লাভ টা হল সেটা হল ঘটঘটানি বন্ধ। আমি দেখলাম ও কম্পাস আর স্কেল নিয়ে বসতেছে। আমি তো খুশি।শাওন এমনিতে ভালো ছেলে। সারাদিন পড়াশুনায় ডুবে থাকত। অন্যসব ছেলেরা যা করত ও ঐগুলার কিছুই করত না। ফার্স্টইয়ারের ছেলে গুলা অনেক রক্ত গরম টাইপের হয়। নতুন ভার্সিটি উঠছে,তার উপর ঢাকা শহরের বাতাস। সব কিছু মিলায়া একেবারে রঙিন দুনিয়া। আমাগো হলেই কয়েকটা পোলা ছিল যারা মদ,আফিম,হিরোইন,গাজ� �, আর মাইয়া লইয়া সারাদিন টাল হইয়া থাকত। আমি জানতাম প্রতিটা রুমেই একটা দুটো এরকম থাকেই। আমি যখন প্রথম যাই হলে থাকতে,তখন যেই রুমে ছিলাম সেটাতে দুটো আর্কিটেক্ট ভাইয়া ছিল। দেখতাম সারাদিন টাল হয়ে থাকত। আমারেও কয়েকদিন মদ নিতে কইছিল। নিছিলামও,কিন্তু খাইতে পারি নাই। এত জঘন্য জিনিস মনে হয় আমি এর আগে টেস্ট করি নাই। মদের থেকে মনে হয় মুতও বেশি মজা। আর সিগারেটের গন্ধই সহ্য করতে পারি না,গাঞ্জা তো দূরে থাক। কয়েকদিন অবশ্য পর্ণো মুভি দেখার চেষ্টা করেছিলাম। কিন্তু সেটাও ভালো লাগে নাই। সব গুলা একই রকম। কোন বৈচিত্র নাই। যখন দেখতাম তখন আমার এক্সাইটমেন্টই হইত না। তাই ঐটাও বেশিদিন করতে পারি নাই। হলের সবাই জানত আমাগো রুমে কোন রকমের উল্টাপাল্টা কাজ হইত না। এইজন্য একটা সুন্দর নামও ছিল আমাদের রুমটার। সেটা হল পবিত্র রুম। বুয়েটের জেরুজালেম (পবিত্র নগরী,যারা মুসলমান তারা হয়ত জেনে থাকবেন)। আর আমাগোরে মানে আমারে আর শাওন রে কইত পূত,পবিত্র মানুষ অথবা শিশু। পরে অবশ্য শিশু নামটাই বেশ প্রচলিত ছিল। তবে আমি যে ড্রিংক্স করতাম না তা একেবারে ঠিক না। আমার ওয়াইনটা খুব প্রিয়। আইস ওয়াইনটা বেশি লাইক করি। এখন সপ্তাহে অন্তত একবার এটা টেস্ট করি। আগে মাসে একবারও পাইতাম না। ব্রান্ডের মাঝে লাইক করতাম এলসিনো আর রেড সেভেন। অদ্ভুত জিনিস দুইটা। তবে প্রচুর দাম ছিল তখন। একটা এলসিনো’র বোটল ছিল ৪ থেকে ৫ হাজার টাকা। যেটা ছিল আমার সারা মাসের খরচ। আর পোলাপাইনরাও আনত না। কইত নেশা নাকি জমে না। অবশ্য মাঝে মধ্যে স্যারের বাসায় গেলে খাওয়া যাইত।একটু পর দেখলাম আমার মোবাইলের লাইটটা একবার জ্বলতাছে একবার নিভতাছে। হাতে নিয়ে দেখি সপ্নার ফোন। সপ্না এখন আমার বউ কিন্তু তখন আমার গার্লফ্রেন্ড ছিল। ও তখন ডি.এম.সি.

তে পড়ত। সেকেন্ড ইয়ারে। পরে এফ.সি.পি.এস’ও শেষ করছে। এখন সুন্দর ঘরে বসে আছে। সে নাকি টায়ার্ড হয়ে গেছে। ডাক্তারি করতে পেইন লাগে। এই মেয়েটাকে যখন আমি প্রথম দেখেছিলাম তখনই আমার মনে হয়েছিল মেয়েটার মাথায় কিছু না কিছু ছিট তো আছেই। আর এখনও জীবনের প্রতিটা ডিসিশনে সেটার পরিচয় খুব ভাল ভাবেই দিচ্ছে। তবুও কেন জানি মেয়েটাকে ভাল লাগে। হয়ত মানুষ ভালো এই জন্য।ফোন রিসিভ করতেই সেই জ্বালাময়ী কণ্ঠ কানে এল।–হ্যালো,রিশাত,কেমন আছো? –আমি ভীষণ ভালো আছি। তার উপর তোমার জন্য একটা, না না, অনেকগুলা সারপ্রাইজ আছে, তাই আরও বেশি বেশি ভালো।–কি সারপ্রাইজ? –না,ভার্সিটি বন্ধ হয়ে গেছে। আগামী সাত দিন বন্ধ থাকবে।–“তাই নাকি?

Leave a Reply